ট্রলে টাল প্রজন্ম

আমাদের দেশের যে কয়জন জীবিত লিজেন্ড অভিনেতা আছেন তাদের মধ্যে আবুল হায়াত অন্যতম একজন অভিনেতা!! এই ব্যক্তিকে আমি ছোটবেলা থেকে একই রকম দেখে আসছি, আজ রবিবার কিংবা আগুনের পরশমণি বা এখনকার হাউজফুল বলেন, সমান দাপটে অভিনয় করে আসছেন এই ভদ্রলোক!!

তাঁকে নিয়ে আমাকে একটা স্ক্যান্ডাল দেখানতো বা কোন বিতর্ক, পারবেন?? আমার জানামতে নেই, আপনিও পারবেন না দেখাতে!! চিন্তা করতে পারেন দুনিয়ার সব দেশ যেখানে তাদের তরুণ তরুণ অভিনেতা অভিনেত্রী দিয়ে কিভাবে তাদের শিল্পকে, দেশকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরছে আর আমাদের এখনো নাটক শিল্প বাঁচাতে এই বৃদ্ধ আবুল হায়াত বা যাকে আপনারা জীবত থাকতে দিনে দশবার মারেন এটিএম শামসুজ্জামানের কাছে পরে থাকতে হয়!!

আপনার কি মনে হয় আবুল হায়াত বা এটিএম শামসুজ্জামান উনারা পেটের দায়ে এখনো অভিনয় করেন?? না, এই দেশের আইসিইউতে রাখা নাট্যশিল্পটাকে বাঁচিয়ে রাখতেই এখনো এই বৃদ্ধ শরীর নিয়ে উনারা অভিনয় করে যাচ্ছেন এবং আপনি এখনকার শিল্পীদের মধ্যে তাঁদের নখের যোগ্য একজনকে দেখাতে পারবেন না যাদের শরীর অভিনয় জানে, যাদের মুখের একটা এক্সপ্রেশনই আপনাকে শিল্প দেখাবে!! হ্যাঁ একদম নাইও যে সেটাও না, আসলে তাঁদের সাথে কারো তুলনা করাটাও উচিৎ না!!

যাইহোক আমাদের কিছু মানুষের ফেসবুক ব্যবহারের উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করা উচিৎ। যেমন, যে অশিক্ষিত ক্ষ্যাত আপনারা এই গুণী মানুষ আবুল হায়াতকে নিয়ে একের পর এক ফেসবুকে ট্রল বানান, আপনারা না আসলে সভ্য সমাজে বাস করার যোগ্য না, আপনাদের বানরের খাঁচায় রাখা উচিৎ কারণ আমার মনেহয় বানরও তার স্বজাতি গুণী নিয়ে ট্রল করতো না যেটা আপনারা করেন!!

গুণীজনের সম্মান না দেয়া আপনাদের জন্যেই আমাদের দেশ এখন গুণীজনে কাঙাল। একটা কথা কি জানেন আবুল হায়াত, এটিএম শামসুজ্জামান, আলি যাকের, নূর সাহেবরা মারা গেলে এইদেশে আর দ্বিতীয় উনারা কেউ আসবে না তাই জীবিত থাকতে এই মানুষ গুলার কাছে কিছু শিখে নিন!!

উনাদের নিয়ে ট্রল বানিয়ে ফেসবুকে আপনার মত ক্ষ্যাত শ্রেণী কিছু মানুষ থেকে লাইক হাহা পাবেন কিন্তু মারা গেলে এই মানুষদের জীবনেও ফেরত পাবেন না, কারো মধ্যেও পাবেন না!! উনারা নিজেরাই নিজেদের তুলনা!! আর আপনারা?? বানরের সাথেও আপনাদের তুলনা চলে না!!

-মোঃ ফজলে খোদা রায়হান

Leave a Reply

Your email address will not be published.